ন্যাশনাল ডেস্ক: বাংলাদেশ জাতীয় গীতা স্কুল কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিষ্ঠাতা প্রসেনজীৎ হালদারের হাত ধরেই ২৪ তম ও ২৫ তম গীতা স্কুল প্রতিষ্ঠা হলো। উক্ত গীতা স্কুলের সার্বিক সহযোগিতায় আছে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ছাত্র মহাজোট কেন্দ্রীয় কমিটি। পরম করুণাময় ঈশ্বরের অশেষ কৃপায় ও সকলের আশির্বাদে ১১/০৬/২০২১ শুক্রবার বিকাল ৪ ঘটিকায় বাংলাদেশ জাতীয় গীতা স্কুলের ২৪ তম গীতা স্কুল প্রতিষ্ঠা হলো দাস পাড়া কালি মন্দির প্রাঙ্গণ, মরিচাবাজার, সিরাজদিখান, মুন্সিগঞ্জ। বাংলাদেশ জাতীয় গীতা স্কুলের সার্বিক সহযোগিতায়: বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ছাত্র মহাজোট কেন্দ্রীয় কমিটি। আয়োজনে: দাস পাড়া মন্দির কতৃপক্ষ। উদ্যোক্তা আর কেউ ন্যায় উদ্যোক্তা হলেন দাস পাড়া ও মরিচাবাজারের কৃতি সন্তান শ্রী বিপ্লব রাজবংশী। বিপ্লব দাদাকে আমি ধন্যবাদ জানিয়ে ছোট করবো না। দাদার কাছে আমি চিরঋণী হয়ে থাকবো। গীতা স্কুল উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সনাতন ধর্মের আদর্শ ও আমাদের সকলের অহংকার, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের প্রতিষ্ঠাটা মহাসচিব আ্যডভোকেট গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক, যুগ্মসচিব নকুল কুমার মন্ডল, যুগ্মসচিব শ্রী রতন রায় চৌধুরী, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নরেশ হালদার। আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ছাত্র মহাজোট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাজেন কৃষ্ণ বল, প্রধান সমন্বয়কারী ধ্রুব বারুরী, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক স্বপন মধু, প্রচার সম্পাদক রনি রাজবংশী, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক প্রসেনজিৎ হালদার, সহ প্রচার সম্পাদক শ্রী পিযুস সহ হিন্দু ছাত্র, যুব ও স্বেচ্ছাসেবক মহাজোট এর স্থানীয় নেতৃবৃন্দ, অন্যান্যা সংগঠনের সম্মানিত নেতৃবৃন্দ, ইসকনের প্রভুসহ উক্ত গ্রামের সম্মানিত ব্যক্তিবর্গ। সকলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি সুন্দর ভাবে সম্পন্ন হয়। অনুষ্ঠান শেষে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে গীতা বিতরণ করা হয় ও সকলের মাঝে প্রসাদ বিতরণের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

বাংলাদেশ জাতীয় গীতা স্কুলের ২৪ ও ২৫তম গীতা স্কুল উদ্বোধন

 

এছাড়া ১৩/০৬/২১ ইং,  রবিবার, সময়: সন্ধ্যা ৬.০০ ঘটিকায় বাংলাদেশ জাতীয় গীতা স্কুলের উদ্যোগে, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ছাত্র মহাজোট কেন্দ্রীয় কমিটির সহযোগিতায়, সৌমিক দে দাদার উদ্যোগে কেশরগঞ্জ পশ্চিম বাজার ফুলবাড়িয়া থানা, ময়মনসিংহ জেলা বাংলাদেশ জাতীয় গীতা স্কুলের ২৫ তম গীতা স্কুল উদ্বোধন হলো। উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণ চন্দ্র পাল, সাজন ধর তন্ময় গোস্মামী,(বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ছাত্র মহাজোট, ময়মনসিংহ জেলা, সৌমিক দে (যুগ্ম আহ্বায়ক), বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ছাত্র মহাজোট ফুলবাড়িয়া উপজেলা শাখা ও উদোক্তা জাতীয় গীতা স্কুল কেশরগঞ্জ, শ্রী কীশর চন্দ্র সাহা সভাপতি, উক্ত মন্দির কমিটি, শ্রী প্রনতোষ সাহা (সহ সভাপতি), শ্রী জীবন রবি দাস (সাধারণ সম্পাদক মন্দির কমিটি), প্রতুল কুমার চক্রবর্তী উপদেষ্টা মন্ডলীর আহবায়ক, ময়মনসিংহ জেলা শাখ, শ্রী শংকর নারায়ণ চক্রবর্তী(পুরোহিত), ডা: রাখাল চন্দ্র দে(কীর্ত্তনীয়া লীলা), এছাড়াও ফুলবাড়িয়া হিন্দু মহাজোট এর সকলে, ফুলবাড়িয়া ছাত্র মহাজোট এর সকল সদস্য ও সম্মানিত এলাকা বাসী। সকলের উপস্থিতিতে ও প্রসাদ বিতরণের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে। গীতা স্কুলের বিষয়ে জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় গীতা স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা প্রসেনজীৎ হালদার বলেন, তিনি চান বাংলাদেশের ৬৪ জেলায়, থানায় ও ইউনিয়নে যতোগুলো মন্দির আছে সকল মন্দিরকে বিদ্যা শিক্ষার কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলা। প্রতি সপ্তাহে এক দিন ১-২ ঘন্টা গীতা শিক্ষার ব্যবস্থা করা। তিনি সনাতন ধর্মলম্বীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমরা সবাই পূজায় লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ না করে তার থেকে কিছু টাকা বাঁচিয়ে নিজ নিজ উদ্যোগে গীতা শিক্ষার কেন্দ্র গড়ে তুলতে। তিনি বলেন আমরা যদি সঠিক ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারি তাহলে আমরা সকল ধর্মের মানুষ এক সাথে সুখে শান্তিতে বসবাস করতে পারবো। তিনি আরো জানান, তার কাছে মনুষ্য ধর্ম বড় ধর্ম। তিনি মনে করেন সকল মানুষ একই স্রষ্টার সৃষ্ট। তাই কাউকে ঘৃণা করা বা ছোট করে দেখা উচিত নয়। তার কাছে কে সনাতনী, কে মুসলীম, কে বৌদ্ধ, কে খ্রিষ্টান এটা বড় কথা নয়। তার কাছে সবার একটায় পরিচয় আর সেটা হলো আমরা সৃষ্টির সেরা জীব। তিনি মনে করেন সকল ধর্মই শান্তির ধর্ম ও সকল ধর্মই সুখ ও শান্তির বার্তা নিয়ে আসে। তাই তিনি বলেছেন যার যার জায়গা থেকে কাজ করার জন্য। তার কথা “যে ব্যক্তি নিজের ধর্মকে ভালোবাসে ও নিজের ধর্মের জন্য কাজ করে, সে কখনো অন্যের ধর্মকে অসম্মান বা অন্যের ধর্মের কাজে বাঁধা সৃষ্টি করে না”। সকলের উচিত সবাই সবাইকে সহায়তা করা। বাংলাদেশের যে কোন জায়গায় গীতা স্কুল করতে যোগাযোগ করুন। আপনারা নিজ নিজ এলাকায় বা শহর থেকে উদ্যোক্তা হয়ে আমাদের সহায়তা করুন।প্রসেনজীৎ হালদার বাংলাদেশ জাতীয় গীতা স্কুল কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিষ্ঠাতা। তিনি বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ছাত্র মহাজোট কেন্দ্রীয় কমিটির “ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক। তার সাথে যোগাযোগ করার জন্য মোবাইল: ০১৭৬৭-৪৪৩৬৪৩

আপনার মতামত দিন